কদরের রাতে কি কি যিকর আযকার করতে পারি ? (রমদানের শেষ ১০ রাত বা বিজোড় রাতগুলোতে)


১। আস্তাগফিরুল্লাহ (কমপক্ষে ৫০০ বার, যত বেশি সম্ভব হয়)


২। বেশী বেশী দুরুদ পড়া। 


اللّٰهُمَّ صَلِّ عَلَى مُحَمَّدٍ، وَعَلَى آلِ مُحَمَّدٍ، كَمَا صَلَّيْتَ عَلَى إِبْرَاهِيْمَ، وَعَلَى آلِ إِبْرَاهِيْمَ، إِنَّكَ حَمِيْدٌ مَجِيْدٌ، اللّٰهُمَّ بَارِكْ عَلَى مُحَمَّدٍ وَّعَلَى آلِ مُحَمَّدٍ، كَمَا بَارَكْتَ عَلَى إِبْرَاهِيْمَ وَعَلَى آلِ إِبْرَاهِيْمَ، إِنَّكَ حَمِيْدٌ مَجِيْدٌ 


হে আল্লাহ! আপনি (আপনার নিকটস্থ উচ্চসভায়) মুহাম্মাদকে সম্মানের সাথে স্মরণ করুন এবং তাঁর পরিবার-পরিজনকে, যেমন আপনি সম্মানের সাথে স্মরণ করেছেন ইবরাহীমকে ও তাঁর পরিবার-পরিজনদেরকে। নিশ্চয় আপনি অত্যন্ত প্রশংসিত ও মহামহিমান্বিত। হে আল্লাহ! আপনি মুহাম্মাদ ও তাঁর পরিবার পরিজনের উপর বরকত নাযিল করুন যেমন আপনি বরকত নাযিল করেছিলেন ইবরাহীম ও তাঁর পরিবার-পরিজনের উপর। নিশ্চয় আপনি অত্যন্ত প্রশংসিত ও মহামহিমান্বিত


আল্লা-হুম্মা সাল্লি ‘আলা মুহাম্মাদিউওয়া ‘আলা আ-লি মুহাম্মাদিন কামা সাল্লাইতা ‘আলা ইবরাহীমা ওয়া ‘আলা আ-লি ইব্রাহীমা ইন্নাকা হামীদুম মাজীদ। আল্লা-হুম্মা বারিক ‘আলা মুহাম্মাদিউওয়া ‘আলা আলি মুহাম্মাদিন, কামা বা-রাকতা ‘আলা ইব্রাহীমা ওয়া ‘আলা আ-লি ইব্রাহীমা ইন্নাকা হামীদুম্ মাজীদ


বুখারী, (ফাতহুল বারীসহ) ৬/৪০৮, নং ৩৩৭০; মুসলিম, নং ৪০৬।


৩। সুবহানাল্লাহি ওয়াবিহামদিহি (কমপক্ষে ১০০ বার)


৪। লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ (কমপক্ষে ১০০ বার)


৫। "লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াহদাহু লা শারিকালাহু লাহুল মুলকু ওয়ালাহুল হামদু ওয়া হুওয়া আ'লা কুল্লি শাইয়্যিন কদির" (কমপক্ষে ১০০ বার)


৬। আল্লাহুম্মা ইন্নাকা 'আফুউন তুহিব্বুল 'আফওয়া ফা'ফু 'আন্নী। (‎‏(اللهم إنك عفو تحب العفو فاعفُ عني‏ উক্ত দোয়াটি বেশি বেশি পড়বেন।


৭। দুয়া ইউনুস - "লা ইলাহা ইল্লা আন্তা সুবহানাকা ইন্নী কুনতু মিনায্ যলিমীন" ।


৮। "সুবহানাল্লাহি ওয়াবিহামদিহি ওয়া সুবহানাল্লাহিল 'আযীম।" (কমপক্ষে ১০০ বার) ।


৯। "সুবহানাল্লাহি ওয়ালহামদু লিল্লাহি ওয়ালা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াল্লাহু আকবার" (কমপক্ষে ১০০ বার) ।


১০। "লা হাওলা ওয়ালা কুওয়্যাতা ইল্লা বিল্লাহ" বেশি বেশি পড়তে পারেন।


১১। "সুবহানাল্লাহিল 'আযিমি ওয়াবি হামদিহ" (যত বেশি পড়া যায়)


১২। সূরা ইখলাস যত বেশি পড়া যায়।


১৩। সুবহানআল্লাহ ,আলহামদুলিল্লাহ আল্লাহু আকবর (১০০ বার বা তার চেয়ে বেশি) 


১৪। প্রতি ওয়াক্ত এ নামাজ শেষে তিনবার এই দুআ পড়া :


اللّٰهُمَّ إِنِّيْ أَسْأَلُكَ الْجَنَّةَ وَأَعُوْذُ بِكَ مِنَ النَّارِ 


হে আল্লাহ! আমি আপনার কাছে জান্নাত চাই এবং জাহান্নাম থেকে আপনার কাছে আশ্রয় চাই।

আল্লা-হুম্মা ইন্নী আসআলুকাল জান্নাতা ওয়া আ‘উযু বিকা মিনান্নার


আবূ দাউদ, নং ৭৯২; ইবন মাজাহ্‌ নং ৯১০। আরও দেখুন, সহীহ ইবন মাজাহ, ২/৩২৮।


যিকর আযকারের পাশাপাশি আল্লাহর কাছে বেশি বেশি দুয়া মুনাজাত করব। ক্ষমা চাইব। 


.


আল্লাহ এর কাছে কি দুয়া করবেন.. [ চলুন জেনে নেই ]


☛ নিজের গুনাহ মাফের জন্য দোয়া করবেন !

☛ গুনাহ থেকে বেঁছে থাকার জন্য দোয়া করবেন !

☛ আল্লাহর অনুগত বান্দা হওয়ার জন্য দোয়া করবেন !

☛ সুন্নাহ মেনে চলা সহজ হওয়ার জন্য দোয়া করবেন !

☛ অন্যের কাছে অপদস্থ না হওয়ার দোয়া করবেন !

☛ বদ নজর থাকে বাঁচার জন্য দোয়া করবেন !

☛ বিপদ বালা মছিবত থেকে বেচে থাকার জন্য দোয়া করবেন !

☛ নিজের হেদায়েতের জন্য দোয়া করবেন !

☛ ইসলামের উপর টিকে থাকার জন্য দোয়া করবেন !

☛ মুনাফিকি থেকে মুক্ত থাকার জন্য দোয়া করবেন !

☛ নিজের পরিবারবর্গের জন্য দোয়া করবেন !

☛ পিতামাতার জন্য দোয়া করবেন !

☛ সন্তান সন্ততির জন্য দোয়া করবেন !

☛ সন্তান সন্ততি স্বামী স্ত্রী-নিজের জন্য নয়ন তৃপ্তিকর হওয়ার জন্য দোয়া করবেন !

☛ স্বামী স্ত্রীর মধ্যে সুসম্পর্ক বজায় রাখার জন্য দোয়া করবেন !

☛ সমস্ত মুসলিম উম্মাহর জন্য দোয়া করবেন !

☛ ছেলে মেয়েদের ইসলামী শিক্ষা দেওয়া সহজ হওয়ার জন্য দোয়া করবেন !

☛ ছেলে মেয়েরা যাতে ইসলামের উপর থাকে সেজন্য দোয়া করবেন !

☛ আত্মীয় স্বজনদের জন্য দোয়া করবেন !

☛ যারা আপনার কাছে দোয়া চেয়েছেন তাদের জন্য দোয়া করবেন !

☛ যে সমস্ত আত্মীয় স্বজন মারা গেছেন তাদের মাগফিরাতের জন্য দোয়া করবেন !

☛ ইসলামের পথে থাকা সহজ হওয়ার জন্য দোয়া করবেন !

☛ ইসলাম সম্প্রসারণের জন্য দোয়া করবেন !

☛ ইসলামের জন্য বুককে সম্প্রসারণ করার জন্য দোয়া করবেন !

☛ আপনার প্রয়োজন পূরণের জন্য দোয়া করবেন !

☛ রোগ মুক্তির জন্য দোয়া করবেন !

☛ হালাল রিজিক সহজ হওয়ার জন্য দোয়া করবেন !

☛ হারাম কাজ থেকে বেচে থাকার জন্য দোয়া করবেন !

☛ সহজে ঋণ পরিশোধ হওয়ার জন্য দোয়া করবেন !

☛ কাফেরদের উতপীড়ন থেকে নিরাপদ থাকার দোয়া করবেন !

☛ অন্যের উপর বোঝা স্বরূপ না হওয়ার জন্য দোয়া করবেন !

☛ বিদাত থেকে বেচে থাকার জন্য দোয়া করবেন !

☛ শির্ক থেকে বেচে থাকার জন্য দোয়া করবেন !

☛ লোক দেখানো ইবাদত থেকে মুক্ত থাকার জন্য দোয়া করবেন !

☛ ঈমান বৃদ্ধির জন্য দোয়া করবেন !

☛ সকল অবস্থায় খাটি ঈমানদার হয়ে থাকার জন্য দোয়া করবেন !

☛ বদ অভ্যাস থেকে মুক্ত থাকার জন্য দোয়া করবেন !

☛ জান্নাতুল ফেরদৌস এর জন্য দোয়া করবেন !

☛ জাহান্নাম থেকে মুক্ত থাকার জন্য দোয়া করবেন !

☛ কবরের আযাব থেকে মুক্তির জন্য দোয়া করবেন !

☛ সকল বিকাল জিকির করা সহজ হওয়ার জন্য দোয়া করবেন !

☛ প্রতিদিন কুরআন তিলওয়াত করা সহজ হওয়ার জন্য দোয়া করবেন !

☛ নবীজির শাফায়াত নসীব হওয়ার জন্য দোয়া করবেন ।

☛ দাজ্জালের ফেতনা থেকে বেচে থাকার জন্য দোয়া করবেন !

☛ সকল রকম ফেতনা থেকে মুক্ত থাকার জন্য দোয়া করবেন !

☛ মনে যাতে মুমিনদের প্রতি হিংসা উৎপাদন না হয় সে জন্য দোয়া করবেন।


.


মাসজিদুল হারামের ইমাম শাইখ মাহির রমাদানের শেষ দশ রাতের জন্য এক চমৎকার আমলের ফর্মুলা দিয়েছেন


১) প্রতিরাতে এক দিরহাম (এক টাকা) দান করুন, যদি দিনটি লাইলাতুল ক্বদরের মাঝে পড়ে, তবে আপনি ৮৪ বছর (১০০০ মাস) পর্যন্ত প্রতিদিন এক টাকা দান করার সাওয়াব পাবেন।

.

২) প্রতিরাতে দু' রাকা'আত নফল সালাত আদায় করুন, যদি দিনটি লাইলাতুল ক্বদরের মাঝে পড়ে তবে আপনি ৮৪ বছর পর্যন্ত প্রতিদিন দু' রাকা'আত সালাতের সাওয়াব পাবেন।

.

৩) প্রতিরাতে তিন বার সূরা ইখলাস পাঠ করুন, যদি দিনটি লাইলাতুল ক্বদরের মাঝে পড়ে, তবে আপনি ৮৪ বছর পর্যন্ত প্রতিদিন এক খতম ক্বুর'আন পাঠের সাওয়াব পাবেন ।

.

তিনি আরও বলেন, উপরের কথাগুলো মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দিন, যারা আপনার কথা শুনে এ আমল করবে, আপনিও তাদের আমলের সমান সাওয়াব পাবেন ইনশাআল্লাহ্।

.

কারণ রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু 'আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন,

"ভালো কাজের পথ প্রদর্শনকারী আমলকারীর সমপরিমাণ সাওয়াব পাবে, কিন্তু আমলকারীর সাওয়াবে কোনো ঘাটতি হবে না।..." [মুসলিম ২৬৭৪]


আল্লাহ্‌ আমাদের আমাল করার তৌফিক দিন।


#শেয়ার_করুন


©সিরাতাল মুস্তাকিম