বই - আরজ আলী সমীপে
লেখক - আরিফ আজাদ
প্রকাশনী - সমকালীন প্রকাশন
পৃষ্ঠা সংখ্যা - ১৪৯
মুদ্রিত মূল্য - ২৫০৳
প্রাপ্তি স্থান - wafilife.com

বাংলাদেশের নাস্তিকতা-জগতে একটি পরম শ্রদ্ধেয়, উচ্চারিত এবং বহুলপ্রচারিত নাম আরজ আলী মাতুব্বর।জন্মেছেন বরিশালে। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা না থাকলেও নিজে নিজে স্বশিক্ষিত হয়েছেন বলে জানা যায়।
ধর্মের প্রতি একধরনের বিতৃষ্ণা থেকে উনি কলম ধরেছিলেন ধর্মের বিরুদ্ধে। এই বিতৃষ্ণা থেকে উনি ধর্ম নিয়ে বেশ কিছু আপত্তি, প্রশ্ন এবং সন্দেহ উত্থাপন করেছিলেন, যেগুলো নাস্তিকসমাজেও বহুল ভাবে ব্যবহৃত হয়; উনি প্রশ্ন করেছেন ধর্ম নিয়ে, ঈশ্বর নিয়ে, আত্মা, পরকাল, প্রকৃতি নিয়ে। ধর্মের সাথে দর্শন আর বিজ্ঞানের অসামঞ্জস্য নিয়েও করেছেন বিস্তর আলোচনা। বাংলা নাস্তিকসমাজের পুরোধা এই লোকের লিখিত বইয়ের জবাব হিসেবে কোনো বই বাংলা ভাষায় ইতিপূর্বে লিখিত হয়নি।
"আরজ আলী সমীপে" বইটিতে লেখক আরিফ আজাদ আরজ আলী মাতুব্বরের প্রশ্নগুলোর জবাব তো দিয়েছেনই, সাথে ছুড়ে দিয়েছেন পাল্টা প্রশ্নও।

আরজ আলীর বইতে দেখা যায়, তিনি এমন সব বিষয়কে ইসলামের সাথে 'ইসলাম' বলে জুড়ে দিয়েছেন, যা আদতে ইসলাম নয়, বিকৃত কিছু ধর্মচর্চাকে তিনি ইসলাম বলে চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেছেন। এটা এজন্যই যে, ইসলাম সম্পর্কে তার জ্ঞান ছিলো অতি সামান্য। তিনি ইসলাম সম্পর্কে যাই জেনেছেন মোটামুটি সবই লোকমুখে শোনা কুসংস্কারাচ্ছন্ন বিষয়, তার দাবির পক্ষে তিনি কোনো রেফারেন্সও তুলে ধরেননি। আর সেগুলোকেই তিনি ইসলাম বলে চালিয়ে দিয়ে ইসলামকে আক্রমণের চেষ্টা করেছেন। অথচ যে কোনো বিষয়ের সমালোচনা করার জন্যও যে আগে সে বিষয়ে ভালোভাবে জানা প্রয়োজন, সেই কমন সেন্সের পরিচয়টুকুও আরজ আলী দেন নি। আসলে তিনি কোনটা ধর্ম আর কোনটা কুসংস্কার, চিনতে না পেরে সব একাকার করে ফেলেছেন।
তার প্রশ্নগুলো আমার কাছে মনে হয়েছে নিতান্তই অসাড়, শিশুসুলভ আর বিকৃতমস্তিষ্ক প্রসূত; জুগিয়েছে হাসির খোরাক। আবার যে বিজ্ঞানকে ঈশ্বর জ্ঞান করে তিনি ইসলামকে আক্রমণ করতে নেমেছেন, সেই বিজ্ঞান বিষয়েও তার জ্ঞান অতি নিম্ন পর্যায়ের। তার প্রশ্ন পড়ে আপনাআপনি মনে প্রশ্ন চলে আসে, "এই লোককে কিভাবে স্বশিক্ষিত বলা হয়? এত অসাড় যুক্তি নিয়ে সে নাস্তিকদের গুরুই হয় কিভাবে? এত নিম্নপর্যায়ের জ্ঞান নিয়ে কোনো পাগলেও কি ইসলামকে আক্রমণ করতে আসে?"

এই বইয়ের 'বিবিধ' অংশটা লেখক আরিফ আজাদ অতি যত্নসহকারে লিখেছেন। বিবর্তনবাদ নিয়ে যে কেউ পড়াশুনা করতে গেলে এই অধ্যায়টা তার জন্য বেশ কাজে দেবে। কত ভুলভাল জল্পনা-কল্পনা আর জগাখিচুরির মিশেলে যে বিজ্ঞানীরা বিবর্তনবাদকে প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা করেছেন, আর করে যাচ্ছেন; আর কত অসৎ উপায় যে অবলম্বন করে চলেছেন - ব্যাপারগুলো সত্যি শিউরে ওঠার মতো।

লেখক আরিফ আজাদ আসলে অতি ভদ্র ভাষায় ধবলধোলাই করেছেন আরজ আলীকে। নাস্তিকতার বিপক্ষে, আস্তিকতার পক্ষে বইটি একটি শক্তিশালী দলিল হিসেবেই কাজ করবে।